Wednesday, March 12, 2014

From Wikileaks.org: US Envoy in Bangladesh Recommended Ban on Tarek Zia


C O N F I D E N T I A L DHAKA 001143 SIPDIS VISAS DEPT FOR INL, SCA E.O. 12958: DECL: 11/03/2009 TAGS: ASEC, CVIS, ECON, KCOR, KCRM, KFRD, PGOV, PREL SUBJECT: VISAS DONKEY CORRUPTION 212(F) (RAHMAN, TARIQUE) REF: A. STATE 81854 B. 04 STATE 45499 Classified By: Ambassador James F. Moriarty for reasons 1.4(b) and (d) 1. (C) SUMMARY: The Embassy is seeking a security advisory opinion under section 212(f) of the Immigration and Nationality Act, Presidential Proclamation 7750, suspending the entry into the United States of Tarique Rahman (aka Tarique), born on November 20, 1967 in Bangladesh. The Embassy believes Tarique is guilty of egregious political corruption that has had a serious adverse effect on U.S. national interests mentioned in Section 4 of the proclamation, namely the stability of democratic institutions and U.S. foreign assistance goals. The Embassy is not seeking to apply a 212(f) finding to Tarique Rahaman's wife, Dr. Zubaida Rahman, to their daughter, Zaima Rahman, or to his mother Begum Khaleda Zia, a former Prime Minister of Bangladesh. The following provides the information requested in Ref A. ---------- BACKGROUND ---------- 2. (C) Bangladesh is a developing nation in which systemic corruption has permeated all aspects of public life. Through 2006, the nation topped Transparency International's ranking of the world's most corrupt governments four years in a row. The current Caretaker Government, which assumed power in January 2007 after months of political unrest, pledged to root out corruption and rid the nation of the kleptocratic scourge that has so long plagued this poverty-stricken nation. In fact, corruption has lowered Bangladesh's growth rate by two percent per year, according to experts. 3. (C) While the Caretaker Government's efforts have met with some success, the deep politicization of public administration remains a persistent problem. Cynicism about the Government's willingness or ability to hold corrupt leaders accountable remains high. Concerns about corruption continue to create a vacuum of trust that limits private sector investment and undermines public confidence in a democratic future. -------------- TARIQUE RAHMAN -------------- 4. (C) Tarique Rahman, the notorious and widely feared son of former Prime Minister Khaleda Zia, was released on bail from prison on September 3. He departed Bangladesh to seek medical treatment in the UK on September 11. Having served as the Senior Joint Secretary General of the Bangladesh Nationalist Party, Tarique is an extremely high profile political figure. Notorious for flagrantly and frequently demanding bribes in connection with government procurement actions and appointments to political office, Tarique is a symbol of kleptocratic government and violent politics in Bangladesh. His release occurred despite multiple pending cases against him on charges of, inter alia, corruption, extortion, bribery, embezzlement and tax evasion. With deep political ties that reach the highest court in the land, Tarique managed to manipulate the judicial process and overcome a concerted effort by the Caretaker Government to block his bail. We believe Tarique has several passports, including a new one in which the UK issued him a visa in September. Another passport contains a five year multiple-entry B1/B2 visa (issued May 11, 2005). We suspect that passport is being held by the government. 5. (C) The Anti-Corruption Commission (ACC), a body empowered by the current interim government to investigate, charge, and prosecute high profile malefactors, has levelled serious charges against Tarique. Tarique reportedly has accumulated hundreds of millions of dollars in illicit wealth. There are multiple extortion cases pending against him, founded on the testimony of numerous prominent business owners who he victimized and exploited. In one case, Tarique allegedly threatened Al Amin Construction owner Amin Ahmed with closure of the company unless he received a payment of 150,000 USD. Other local business leaders, including Mohammad Aftab Uddin Khan of Reza Construction, Ltd, Mir Zahir Hossian of Mir Akhter Hossain Ltd., and Harun Ferdousi have each filed accusations detailing a systematic pattern of extortion on a multi-million dollar scale. The ACC has also filed charges of concealing ill-gotten wealth, and the National Board of Revenue has brought tax evasion charges against Tarique. (Note: The Bangladeshi legal system is a testimony-based system and not an evidence-based system. It is standard practice for testimonial records to be used as the primary source of information for prosecutions. End Note) 6. (C) Tarique's corrupt activities were not limited to extortion of local companies. The ACC has also uncovered evidence in several bribery cases involving both foreign and local firms and individuals: A. Siemens: According to a witness who funneled bribes from Siemens to Tarique and his brother Koko, Tarique received a bribe of approximately two percent on all Siemens deals in Bangladesh (paid in US dollars). This case is currently being pursued by DOJ Asset Forfeiture (POC: Deputy Chief Linda Samuels) and by the FBI (POC: Debra Laprevotte). B. Harbin Company: ACC sources report that the Harbin Company, a Chinese construction company, paid 750,000 USD to Tarique to open a plant. According to the ACC, one of Tarique's cronies received the bribe and transported it to Singapore for deposit with Citibank. C. Monem Construction: An ACC investigator advised Embassy officials that Monem Construction paid a bribe worth 450,000 USD to Tarique to secure contracts. D. Kabir Murder Case: The ACC has evidence that Tarique accepted a 210 million taka (3.1 million USD) bribe to thwart the prosecution of a murder case against Sanvir Sobhan. Sanvir is the son of the chairman of the Bashundura Group, one of the nation's most prominent industrial conglomerates. Sanvir was accused in the killing of Humayun Kabir, a Bashundura Group director. An investigation by the ACC confirmed Tarique had solicited the payment, promising to clear Sanvir of all charges. 7. (C) Beyond bribery and extortion, the ACC reports Tarique also became involved in an elaborate and lucrative embezzlement scheme. With the help of several accomplices, Tarique succeeded in looting 20 million taka (300,000 USD) from the Zia Orphanage Trust fund. According to an ACC source, Tarique, who is a co-signer on the trust fund account, used funds from the trust for a land purchase in his hometown. He also provided signed checks drawn from the orphanage fund accounts to BNP party members for their 2006 election campaigns. 8. (C) Tarique's corrupt practices have had deleterious effects on the U.S. interests specified in the Proclamation. His antics have weakened public confidence in government and eroded the stability of democratic institutions. Tarique's well-established reputation for flouting the rule of law directly threatens U.S. financial assistance goals directed toward reforming legal codes, strengthening good governance and halting judicial abuses. The bribery, embezzlement, and culture of corruption that Tarique has helped create and maintain in Bangladesh has directly and irreparably undermined U.S. businesses, resulting in many lost opportunities. His theft of millions of dollars in public money has undermined political stability in this moderate, Muslim-majority nation and subverted U.S. attempts to foster a stable democratic government, a key objective in this strategically important region. 9. (C) Tarique's flagrant corruption has also seriously threatened specific U.S. Mission goals. Embassy Dhaka has three key priorities for Bangladesh: democratization, development, and denial of space to terrorists. Tarique's audaciously corrupt activities jeopardize all three. His history of embezzlement, extortion, and interference in the judicial process undermines the rule of law and threatens to upend the U.S. goal of a stable, democratic Bangladesh. The climate of corrupt business practices and bribe solicitation that Tarique fostered derailed U.S. efforts to promote economic development by discouraging much needed foreign investment and complicating the international operations of U.S. companies. Finally, his flagrant disregard for the rule of law has provided potent ground for terrorists to gain a foothold in Bangladesh while also exacerbating poverty and weakening democratic institutions. In short, much of what is wrong in Bangladesh can be blamed on Tarique and his cronies. 10. (C) Applying a 212(f) finding to Tarique Rahman supports the US's strong stand against corruption in Bangladesh. Embassy recommends that Tarique Rahman be found subject to Presidential Proclamation 7750 for participating in public official corruption as defined by Section 1, Paragraph (c) of the Proclamation. Moriarty

Friday, October 11, 2013

BNP's Alliance Partner is Closely Linked to Al Qaeda and Taliban

Lalkhan Madrasa: A Huji Den

 Julfikar Ali Manik  

The founder of the Madrasa played a significant role in spreading the network of Huji across the country since early 1990s
An explosion rocked the Lalkhanbazar Madrasa, run by Hefazat-e-Islam leader Mufti Izharul Islam Chowdhury, in the port city of Chittagong Monday morning


An explosion rocked the Lalkhanbazar Madrasa, run by Hefazat-e-Islam leader Mufti Izharul Islam Chowdhury, in the port city of Chittagong Monday morning  


Mufti Izharul Islam Chowdhury, founder of Jamiatul Uloom Al Islamia Madrasa  
Photo- Dhaka Tribune
The Qawmi madrasa in Chittagong, which came under spotlight after explosion of locally made hand grenades on its premises on Monday, has long been known as a den of banned Islamist militant outfit Harkat-ul-Jihad al Islami (Huji).

Mufti Izharul Islam Chowdhury, founder of Jamiyatul Ulum Al Islamia Madrasa – otherwise known as Lalkhan Bazar Madrasa – played a significant role in spreading the network of the radical outfit across the country since early 1990s with the ultimate goal of launching a jihad.

A source in Chittagong, who has close links with these networks, told the Dhaka Tribune last evening that the madrasa had even trained Huji members in operating arms so they could fight in the battlefield as trained jihadis.

The source also confirmed that Mufti Izhar, founder principal of Lalkhan madrasa, had very close links with Osama Bin Laden and Mollah Omar of the terrorist organisation al-Qaeda. Izhar travelled to Afghanistan on several occasions and met Laden, Omar and many other Taliban leaders.

He has described his trips to Afghanistan and meetings with the Taliban leaders in different publications, which are circulated within the Huji network.

About 70 years old, Mufti Izhar is one of the senior leaders in the Islamist parties in the country. He is the ameer of a faction of the Islami Oikya Jote (IOJ) and also the chairman of a faction of Nezam-e-Islam.

He and his madrasa have close ties with the fundamentalist Islamist outfit Hefazat-e-Islam and its headquarters Hathazari madrasa in Chittagong.

Some Islamist leaders and also the source close to the radical network said Izhar claimed himself as the nayeb-e-ameer (vice-president) of Hefazat, but his rival groups opposed his claim.

Two sons of Izhar are central leaders of Hefazat. None of them could be reached on Monday over phone as their mobile phones were switched off.

Citing local people, the source said Izhar had been available at the madrasa until 5pm, but he had since been missing and his mobile phone was also found switched off.

Izhar was arrested in December 2010 in connection with two criminal cases in Chittagong, but he came out on bail after a few months. The Criminal Investigation Department in Dhaka at that time showed Izhar arrested in a case to investigate his Huji links. A CID official, on condition of anonymity, told the Dhaka Tribune that the investigation had stalled after Izhar had got out on bail.

Huji was launched through a press conference at the National Press Club in the capital in 1992. The press conference was addressed by a group of Bangladeshi Afghan war veterans who had gone to Afghanistan in the 1980s to fight with local Mujaheedins there against the then Soviet occupational force.

Establishing a network based in Qawmi madrasas, Huji carried out a number of terrorist attacks and also planted bombs to kill Awami League chief Sheikh Hasina at Kotalipara, Gopalganj, in 2000 during her first term as the prime minister.

Huji even carried out grenade attacks on an Awami League rally on Bangabandhu Avenue on August 21, 2004 to assassinate Hasina, who narrowly escaped death, but the attacks killed 24 Awami League leaders and activists and maimed 300 others, according to police investigation.

Huji used smuggled Arges grenades, a military weapon, in the attack.

The outfit was banned in October 2005 for its anti-state activities.

After on Monday’s explosion inside Mufti Izhar’s madrasa, a police official in Chittagong confirmed that the grenades had been locally made.

“The explosion occurred when they were making grenades inside the madrasa,” Mohammad Shohidullah, additional deputy commissioner of Chittagong Metropolitan Police, told the Dhaka Tribune over phone.

The multi-storey madrasa was established in a hilly region in Chittagong in 1980, accommodating around 1,500 students and 50 teachers.

After on Monday’s explosions, police officials in Chittagong started investigating Izhar’s involvement with the radical groups home and abroad.

After the countrywide simultaneous blasts of about 500 bombs by another militant outfit – Jama’atul Mujahideen Bangladesh (JMB) – in 2005, the then government had to launch a crackdown on militant outfits. Arms training at Lalkhan madrasa also stopped at that time, police sources said.

After on Monday’s blast, madrasa people and leaders of Islamist parties started propagating that the explosion was caused by a CPU and a UPS of a computer, trying to hide the making of grenades.

Police were raiding the madrasa and arrested nine people including three teachers and four of them were arrested from two private hospitals while undergoing treatment.

The source confirmed that one of them was a diploma engineer from Chittagong Polytechnic Institute and he was providing technical support to make grenades.

Source:   http://www.dhakatribune.com/bangladesh/2013/oct/08/lalkhan-madrasa-den-huji

Thursday, October 10, 2013

Maududi's Son Says Jamaate Islami should be banned


প্রকাশ : ০৬ অক্টোবর, ২০১৩ ১২:১৯:৩৭
ধর্মীয় রাজনীতি মাদক ব্যবসার মতো: মওদুদী
অনলাইন ডেস্ক

কোরআন ও ইসলামের হেফাজতের জন্য সয়ং আল্লাহই যথষ্টে। এর জন্য জামায়াত বা হেফাজতে ইসলামের মতো সংগঠণের দরকার নেই। কোরআনে পরিস্কার বলা আছে. 'এই কোরআনকে আমিই হেফাজত করব।' সংগঠণ করেতো ইসলামকে হেফাজত করা যাবে না। শনিবার বাংলাদেশের এক জাতীয় দৈনিকে সাক্ষাত দিতে গিয়ে এ কথা বলেন অল ইণ্ডিয়া জামায়াতে ইসলামীর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সাইয়েদ আবুল আলা মওদুদীর ছেলে সাইয়েদ হায়দার ফারুক মওদুদী।

'ধর্ম ও  রাজনীতি: দক্ষিণ এশিয়া' শীর্ষক আন্তর্জাতিক গণবক্তৃতা ও সম্মেলন উপলক্ষে ৩ দিনের সফরে ঢাকা অবস্থান করছেন পাকিস্তানের এ ইসলামি চিন্তাবিদ।

ধর্মভিত্তিক রাজনীতিকে মাদক ব্যবসার সঙ্গে তুলনা করে ফারুক মওদুদী বলেন, আমার বাবা আমাদের সব ভাই-বোনকে সবসময় ধর্মভিত্তিক রাজনীতি কিংবা জামায়াতের রাজনীতি থেকে দুরে রেখেছেন। বিষয়টিকে তিনি মাদক ব্যবসার সঙ্গে তুলনা করেছেন। একজন মাদক ব্যবসায়ী যেমন চায় না তার সন্তানরা কেউ মাদক সেবন করুক, বাবাও তেমনি আমাদের জামায়াতের কর্মকাণ্ড থেকে দূরে রাখতেন। এমনকি দূরে দাড়িয়ে কখনো জামায়াতের সমাবেশও দেখতে দিতেন না। আমাদের ৯ ভাই-বোনের কেউই জামায়াত রাজনীতির সঙ্গে জড়াননি। প্রত্যেকে দেশে-বিদেশে বিভিন্ন পেশায় ভালো অবস্থানে আছে। তিনি বলেন, জামায়াত একটা ফ্যাসিস্টদের দল। এ দলে আমিরের অবস্থা সেনাপ্রধানের মতো। তাকে চ্যালেঞ্জ করা যাবে না। এসব দলকে নিষদ্ধি করতে হবে।

জামায়াতে ইসলামীর প্রতিষ্ঠাতা পুত্র হায়দার ফারুক বলেন, ১৯৪৭ সালে জামায়াতে ইসলামী পাকিস্তান রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার বিরোধীতা করেছে। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধীতা করেছে। এ অপরাধেই দুই রাষ্ট্রেই জামায়াতের রাজনীতি নিষদ্ধি করা দরকার। দেশের অসি্তত্বে যারা বিশ্বাস করে না তাদের রাজনীতি করার অধিকার থাকে না। তিনি বলেন, পাকিস্তান স্বাধীন হয়েছিল ধর্মীয় উদ্দেশ্যে। এ দেশ হয়েছে স্বাধীনতার উদ্দেশ্যে। রাজনীতিতে ধর্মের ব্যবহারের কারণেই পাকিস্তান এত সমস্যা জর্জরিত। পাকিস্তানি ইসলামি চিন্তাবিদ হায়দার ফারুক মওদুদির আজ বাংলাদেশ ত্যাগের কথা রয়েছে। 


Source:     http://www.bd-pratidin.com/2013/10/06/20302

Also http://www.ittefaq.com.bd/index.php?ref=MjBfMTBfMDhfMTNfMV8xXzFfNzcyMzM=
 
মওদুদীপুত্র হায়দার ফারুক বললেনবাংলাদেশে জামায়াতের রাজনীতি করার কোনো অধিকার নেই

'যে জামায়াত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার বিরোধিতা করেছিল, স্বাধীনতার ৪২ বছর পর সেই দল এখনো এ দেশে রাজনীতি করে কী করে?' প্রশ্নটি তুলেছেন জামায়াতে ইসলামীর প্রতিষ্ঠাতা সৈয়দ আবুল আলা মওদুদীর ছেলে হায়দার ফারুক মওদুদী। তিনি স্পষ্ট করে বলেছেন, বাংলাদেশে জামায়াতের রাজনীতি করার কোনো অধিকার নেই। ধর্ম ও রাজনীতিবিষয়ক একটি আন্তর্জাতিক সেমিনারে অংশ নিতে ঢাকায় এসে গত শুক্রবার বিভিন্ন গণমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন তিনি।
'ধর্ম ও রাজনীতি : দক্ষিণ এশিয়া' শীর্ষক দুই দিনব্যাপী সেমিনারে যোগ দিতে গত বৃহস্পতিবার ঢাকায় আসেন মওদুদীপুত্র ফারুক। এই সেমিনারের পাশাপাশি গত শুক্রবার একাধিক পত্রিকাকে সাক্ষাৎকার দেন তিনি। এ সময় তিনি ১৯৭১ সালে সংঘটিত যুদ্ধাপরাধের বিচার সম্পর্কে বলেন, 'মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ করায় কাউকে ছাড় দেওয়া উচিত নয়। সবাইকে বিচারের মুখোমুখি করা উচিত। আইনের চোখে অপরাধী হলে সবার সাজা হওয়া উচিত।'
এ সময় এক প্রশ্নের জবাবে ফারুক বলেন, 'শেখ সাহেবের (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান) মৃত্যুর পর ক্ষমতাসীনরাই জামায়াতকে পতনের মুখ থেকে টেনে তুলেছে। সেই ধারাটা এখনো অব্যাহত আছে।'
এ প্রসঙ্গে ফারুক বলেন, স্বাধীনতার পর গঠিত বাংলাদেশ সরকারের প্রথম সিদ্ধান্ত ছিল পাঁচটি রাজনৈতিক দলকে নিষিদ্ধ করা। এর মধ্যে জামায়াতও ছিল। বাকি দলগুলো ছিল মুসলিম লীগ, পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক পার্টি, নেজামে ইসলাম ও পাকিস্তান পিপলস পার্টি। সেই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেওয়ায় জামায়াতসহ বাকি দলগুলো কোণঠাসা হয়ে পড়েছিল। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর জিয়াউর রহমান বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার নামে জামায়াতসহ এসব দলকে আবারও বাংলাদেশে রাজনীতি করার সুযোগ দেন। এসব দল শুধু বাংলাদেশের স্বাধীনতাকেই অস্বীকার করেনি, পাকিস্তানের হানাদার বাহিনীকে গণহত্যাসহ নানা ধরনের যুদ্ধাপরাধ ঘটানোর কাজে সরাসরি সহযোগিতা করেছিল। তিনি বিশ্বাস করেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধিতা করায় এই ধর্মভিত্তিক দলটিকে এ দেশের মাটিতে রাজনীতি করতে দেওয়া মোটেই উচিত নয়।
 হায়দার ফারুক মওদুদী স্পষ্টভাষায় বলেন, জামায়াতে ইসলামীর রাজনীতি হচ্ছে ধর্মের নাম ভাঙিয়ে সুবিধাবাদের রাজনীতি। জামায়াত নেতারা কখনো নিজেদের সন্তানকে বিপদের মুখে ঠেলে দিতে চান না। আর তাই জামায়াত যত সহিংসতায় জড়ায়, সেগুলোতে সব সময় ক্ষতিগ্রস্ত হয় সাধারণ মানুষ। আর এর ফায়দা লোটেন দলটির নেতারা।
 ফারুক জানান, তাঁর বাবা উপমহাদেশে জামায়াতে ইসলামী প্রতিষ্ঠা করেছিলেন বটে কিন্তু মওদুদীর ৯ সন্তানের কেউই দলটির রাজনীতিতে জড়াননি। বাবার রাজনৈতিক দলে সম্পৃক্ত হওয়ার জন্য তাঁদের ওপর পারিবারিক কোনো চাপও ছিল না। বরং তাঁরা যাতে রাজনীতিতে না জড়ান সে জন্য সব সময় সতর্ক দৃষ্টি রাখতেন তাঁদের বাবা। কিন্তু এর কারণটা কোনো দিন ছেলেদের বলেননি তিনি।
 পাকিস্তানের জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে বাংলাদেশের দলটির কোনো সম্পর্ক আছে কি না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে হায়দার ফারুক বলেন, 'এ দুটি দল হচ্ছে একই শরীরের বাম ও ডান হাতের মতো। একটি মস্তিষ্ক অর্থাৎ কেন্দ্র দুই দেশের দলকেই নিয়ন্ত্রণ করছে।' এ সময় তিনি ধর্মভিত্তিক রাজনীতি ও ধর্মের ভিত্তিতে দেশ গঠনের চিন্তার সরাসরি বিরোধিতা করেন। এ ছাড়া রাষ্ট্রধর্ম ঘোষণার বিরুদ্ধেও মত দেন তিনি। তিনি বলেন, 'দেশ হচ্ছে একটা বড় ছাদ, যার নিচে সব ধর্মের মানুষ বাস করবে। যদি কোনো রাষ্ট্র সত্যিকারের গণতন্ত্রের চর্চা করে তাহলে সে দেশে রাষ্ট্রধর্ম বলে কিছু থাকতে পারে না। যদি কোনো রাষ্ট্র রাষ্ট্রধর্ম বলে কোনো কিছুর অস্তিত্বকে স্বীকার করে, তাহলে সেখানে গণতন্ত্র নয়, অবশ্যই অন্য কিছুর চর্চা হয়।
 উদারপন্থী এই ব্যক্তিত্বের অভিমত, যখন রাজনীতির ভেতরে ধর্ম ঢুকে যায়, ধর্মের ব্যাখ্যা দিয়ে রাজনীতি করার চেষ্টা করা হয়, তখন সেটা মানুষকে হত্যার কাজে ব্যবহার করা হয়। এটা মনুষ্যত্বকে ধ্বংস করে দেয়।
 সাংবাদিকদের আরেক প্রশ্নের জবাবে হায়দার ফারুক বলেন, ১৯৪৭ সালে পাকিস্তানের স্বাধীনতার আন্দোলনকে সমর্থন করেনি জামায়াতে ইসলামী। সে সময় পাকিস্তানের আন্দোলনকে 'নাপাকিস্তান' বলে আখ্যায়িত করেন মওদুদী। এরপর ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ সৃষ্টিরও বিরোধিতা করে দলটি। তিনি বলেন, পাকিস্তান সৃষ্টির পর সে দেশে জামায়াত সুবিধা করতে পারেনি। তবে ১৯৫৮ সালে সামরিক শাসন জারি হলে এ দলটি সামরিক সরকারের প্রত্যক্ষ সমর্থনে ফুলে-ফেঁপে ওঠে।
 ফারুক মওদুদী পেশাজীবনে ছিলেন পাইলট। বর্তমানে পাকিস্তানের লাহোরে কলামিস্ট হিসেবে সময় কাটছে তাঁর। ব্যক্তিগত যেকোনো কারণে ইংরেজি ভাষার ওপর তাঁর মস্ত বিরাগ। তাই সংবাদকর্মীদের উর্দু ভাষায় সাক্ষাৎকারটি দেন তিনি। স্বাধীনতার আগে একাধিকবার ঢাকায় এসেছিলেন বলেও জানান তিনি।

Jamaate Islami Founder Maududi's Son's Amazing Interview

Published: Sunday, October 6, 2013

‘He never let us read his books’

Recalls Farooq Maududi, son of Abul A'la Maududi

'He never let us read his books'

Brought up under the shadows of Syed Abul A’la Maududi, preacher of Sharia-based state in the subcontinent against secular democracy, Syed Haider Farooq Maududi managed to rise above his father’s fundamental ideology.

A strong critic of his father’s Jamaat-e-Islami, the Islamic revivalist party from which Bangladesh Jamaat-e-Islami has evolved, Farooq is now in Dhaka on his first visit here after the Liberation War.

He talked to The Daily Star about his father’s philosophy, party and present politics in South Asia.

On the creation of Jamaat-e-Islami in 1941, Farooq said his father’s political ideology was a result of the era he was born in. “In the era he [Maududi] was born, there was communism, imperialism and he had made Islam also a system of ism, a system of life,” he noted.

On religion-based politics, Farooq said, “Religion is for the people and people are not for religion. Religion makes a human being a good human being.”

However, religious sentiment is so deeply rooted in this region that no one is ready to listen to the right thing, he observed.

About his upbringing, he said his father never let his children read his books or allowed them to involve in Jamaat or any other likeminded politics. “If he ever saw us in a rally or demonstration, he would later call us and ask what business we had standing there. He totally kept us away from all these.”

“This is a tragedy of all our religious politics that we use people’s children, but keep our own away from it as we all know about its negative impacts,” he added.

Asked why his father had kept his children in the dark about his political views, he said, “The person who is at the helm knows about its inside well.”

Farooq also stated that Maulana Abul Kalam Azad, a senior political leader of the Indian independence movement, had warned his father about creating a religion-based party, saying that religious-minded people would gather under its umbrella, bringing about no good.

“That is exactly what happened. When my father founded the party, religious fundamentalists gathered around him. He (Abul A’la Maududi) used them for political purposes, knowing them how dangerous they could be,” he added.

He said his father knew that the Jamaat-e-Islami had deviated from his vision, but he decided not to do anything about it for his advanced age.

Describing the Jamaat-e-Islami of Pakistan and Bangladesh as equals, he said Jamaat should not do politics in Bangladesh whose birth it had opposed.

Syed Abul A’la Maududi too had opposed the creation of Pakistan during the partition of the subcontinent in 1947 because, to him, Pakistan was a state for the Muslims, not an Islamic state.

“He [Abul A'la Maududi] said this is not Pakistan. He didn’t accept Mr Jinnah’s logic [of a nation state for the Muslims]. But ultimately he had migrated to Pakistan, where he floated the party saying that if you made Pakistan on the basis of Islam, we have all the right to make it an Islamic state,” Farooq said quoting his father.

He elaborated on how Jinnah had changed his stance about religion and allowed the practice of religion by the non-Muslims, declaring that the state would not interfere in the matter.

Asked if the Jamaat’s opposition to Pakistan and then his father’s doing politics in the very country can be viewed as similar to the Bangladesh Jamaat-e-Islami’s role here, he replied, “Though my father had opposed Pakistan, the circumstances were such that he had to migrate to Pakistan.”

Both Jinnah and Maududi had changed their stances. Jinnah had shifted his ground from creating a Muslim state to a secular one and Maududi from opposing Pakistan to trying to establish religion-based politics. “As a consequence, we are left in a state of chaos, as you can see now,” said Farooq.

Working for a private airlines company, Farooq on several occasions had visited Bangladesh before 1971.

He is a vocal critic of the protagonists of “Jihad” in Kashmir and writes columns in Urdu newspapers.

Source:   http://www.thedailystar.net/beta2/news/he-never-let-us-read-his-books/

Wednesday, October 2, 2013

Who is the Prophet of Terrorist Jamaate Islami and Islami Chhatra Shibir?

জামাত শিবিরের নবী কে?

সুধি পাঠকবৃন্দ আপনারা একটা জিনিস খেয়াল করে দেখবেন জামাতে ইসলামি ও ইসলামি ছাত্র শিবির কখনোই তাদের মতবাদের স্রষ্টা আবু আলা মওদুদির সমালোচনা করে না। তাদের কাছে মওদুদি সব ভুল ভ্রান্তির উর্ধে। আমি আজ এখানে এমন একটি বিষয়ের অবতারনা করব যাতে প্রশ্ন জাগতে পারে জামাতের সত্যিকার অর্থে নবী বা রাসুল কে? প্রশ্নটি কঠিন ও চমকে দেয়ার মত মনে হলেও এর উত্তর ও বিশ্লেষন সহজভাবে দেয়া যায়।
আমরা প্রায়শই শুনে আসছি বিভিন্ন আলেম ও ইসলামি দলগুলোর নেতাদের মুখ থেকে - জামাত ও ইসলাম এক নয়। খেলাফত আন্দোলনের সহকারী মহাসচিব মুজিবুর রহমান হামিদী বিডিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকমকে কয়েকমাস আগে দেয়া ইন্টারভিউতে এই কথাটি আবার জোর দিয়ে বলেছেন। তিনি আরো বলেছেন, “জামাতের সাথে ঐক্যের প্রশ্নই আসে না। আমরা জামাতকে যতটুকু ঘৃনা করি, আওয়ামি লীগও জামাতকে ততটুকু ঘৃনা করে না। আমরা জানি জামাতের সাথে ইসলামের বিরোধ কোথায়। এটা আমরা আমাদের অন্তর দিয়ে বুঝি।” একটি শ্লোগানের কথা আমার মনে পড়ছে - মওদুদিবাদ নিপাত যাক, ইসলাম মুক্তি পাক।  অনেক আলেম জামাতে ইসলাম না বলে জামাতে মওদুদি বলতে পছন্দ করেন। এর পিছনে অবশ্যই যৌক্তিক কারন আছে।

আমরা ইতিহাস থেকে জানি যে জামাতের গুরু আবু আলা মওদুদি জামাতের জন্মলগ্ন থেকেই সংখ্যালঘু সম্প্রদায় আহমাদিয়াদের অমুসলিম ঘোষনা করে তাদের নানা পদ্ধতিতে নীপিড়ন করার চেষ্টা করে এসেছিল। পাকিস্তানে ভয়াবহ দাঙ্গা লাগিয়ে আহমাদিয়াদের হতাহত ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করার কারনে মওদুদিকে ফাসির আদেশ পর্যন্ত দিতে বাধ্য হয়েছিল পাকিস্তানের সরকার যা পরবর্তিতে অযাচিত সৌদি হস্তক্ষেপে বাতিল হয়ে গিয়েছিল। এই ফাসিটি যদি কার্যকর হত আজ বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের ইতিহাসে অনেক কিছুই হয়ত ভিন্নভাবে লেখা হত। ন্যুনপক্ষে জামাত ও শিবির নামক বিষাক্ত ভাইরাসটির এত ভয়াবহ প্রাদুর্ভাব হত না।

জামাত যে কারন দেখিয়ে আহমদিয়াদের অমুসলিম ঘোষিত করে সমাজে শান্তি বিনষ্ট করার চেষ্টা করে যাচ্ছে বিভিন্ন সময়ে, সেই একই ধরনের অভিযোগে শিবির ও জামাতের ইসলামত্বও খারিজ করে দেয়া যায়। ব্যাপারটি চমকে দেয়ার মত হলেও সত্যি।

আমি তাবলিগ জামাত ও তাবলিগের বাইরে অনেক আলেমের কাছে মুসলমান হওয়ার প্রধান শর্ত হিসেবে এরকম শুনেছি  - যদি কেউ কোরানের একটি মাত্র আয়াত  অস্বীকার করে অথবা সহীহ হাদিসের একটিও অস্বীকার করে তাহলে তার মুসলমানিত্ব খারিজ হয়ে যাবে। কোরান বা সহীহ হাদিসের বিরুদ্ধে অবস্থানকারির স্থান ইসলামে নেই। আসুন এর আলোকে মওদুদির লেখার কিছু অংশে আমরা আলোকপাত করি।
মওদুদি তার রাসায়েল ওয়া মাসায়েল গ্রন্থে ১৩৫১ হিজরি সংস্করনের পৃষ্ঠা ৫৭ লিখেছেন (সালটির উল্লেখ করলাম কারন নতুন সংস্করনে জামাতিরা অরিজিনাল মওদুদির বিতর্কিত অংশগুলো বাদ দিয়ে থাকতে পারে): “রসুলুল্লাহ (সা:) মনে করতেন দজ্জাল উনার জিবদ্দশায় বা কাছাকাছি কোন সময়ে আবির্ভূত হবে। কিন্তু ১৩৫০ বছর পেরিয়ে গেল, অনেক প্রজন্ম আসল আর গেল, তথাপি দজ্জালের আগমন ঘটল না। সুতরাং এটি নিশ্চিত যে রসুলুল্লাহ (সা:) এব্যাপারে যা মনে করতেন তা সত্য বলে প্রমানিত হলো না।”

মওদুদি ১৩৬২ হিজরির পরবর্তি সংস্করনে আরো যোগ করেন: “সত্যিই ১৩৫০ বছর পেরিয়ে গেল, তথাপি দজ্জালের দেখা মিলল না, সুতরাং এটাই বাস্তবতা।”

মওদুদি এ সম্বন্ধে আরো লিখেছেন: “এটি নিশ্চিত সত্য যে দজ্জাল সংক্রান্ত রসুলুল্লাহ (সা:) এর হাদিসগুলো শুধু উনার ব্যক্তিগত মতামত এবং নিজস্ব বিশ্লেষন থেকে দেয়া অভিমত, উনার তরফ থেকে এগুলো সন্দেহযুক্ত অবতারনা।”

সহীহ বোখারি শরিফে প্রায় ১২টির মত ও সহীহ মুসলিম শরিফে তার চেয়েও বেশি হাদিসে রসুলু্ল্লাহ (সা:) দজ্জালের বিষয় এনেছেন। এটি একটি বা দুটি হাদিসের ব্যাপার নয়। আমি মওদুদির রসুলুল্লাহ (সা:) এর দজ্জালের আগমন নিয়ে সহীহ হাদিসগুলোর পরিষ্কার অস্বীকার করা সুধি পাঠকদের নজরে আনছি। নিজেদের ধর্মিয় রাজনৈতিক দল বলে দাবিদার একটি দলের প্রতিষ্ঠাতা ও তাদের আধ্যাত্মিক ও তাত্বিক গুরুর এটি নিঃসন্দেহে ভয়াবহ ধৃষ্টতামূলক কাজ। রসুল (সা:) যার সম্বন্ধে আল্লাহ সূরা নজমের ৩-৪ আয়াতে বলেছেন: “সে তার নিজের ইচ্ছায় কোনকিছু বলে না, শুধুমাত্র (আল্লাহর তরফ থেকে) ওহিই তাকে অনুপ্রানিত করে।”
সম্মানিত পাঠকদের কাছে প্রশ্ন রাখছি - আপনারা কি রসুলুল্লাহ (সাঃ) এর সহীহ হাদিসগুলোকে গ্রহন করবেন নাকি এগুলোকে অবজ্ঞাভরে প্রত্যাখানকারি ভ্রান্ত মতবাদি মওদুদিকে গ্রহন করবেন? মওদুদি রসুলের দজ্জাল আগমনের হাদিসগুলোকে গল্পকাহিনী বলে শুধু জঘন্য রকমের ধৃষ্টতাই দেখান নি, এই অপরাধে তার ইসলামত্ব খারিজ হয়ে যায়। তাকে যারা অন্ধভাবে অনুসরন করছে তাদের বেলাতেও কি একথা প্রযোজ্য নয়? পাকিস্তানে ব্লাসফেমি আইনে যেখানে পান থেকে চুন খসলেই ফাসির আদেশ হয়ে যায়, আজ যদি মওদুদি পাকিস্তানে বেচে থাকত তাকে কি রসুলুল্লাহ(সা:)এর সহীহ হাদিস অবমাননা করার কারনে ফাসি দেয়া হত না? অথচ আজ এই মওদুদিবাদিরাই তাদের প্রতিপক্ষকে নাস্তিক মুরতাদ অমুসলিম এসমস্ত বলে প্রচার করে ভয়াবহ নাশকতা করে যাচ্ছে আর তার সাথে সুর মিলাচ্ছে তাদের মিথ্যা ও প্রতারনার ফাদে পা দেয়া কিছু ধর্মিয় দল। ইসলাম ত্যাগ করার কারনে যদি কাউকে শাস্তি পেতে হয় তাহলে মওদুদিবাদিদেরই সবার আগে পেতে হবে।

উপমহাদেশের কয়েকজন আলেমের জামাত সম্বন্ধে বিভিন্ন সময়ে তাদের দেয়া অভিমত নীচে তুলে ধরা হলো। এগুলো পর্যালোচনা করলে সহজে বোঝা যাবে কি কারনে ১৯৭১ সালে ধর্মের ছদ্মাবরনে তারা নিজের জাতির উপর পৈশাচিক বর্বরতা চালিয়েছিল, সত্যিকারের একটি ইসলামি দলের পক্ষে যা করা সম্ভব নয়। কি কারনে অন্যান্য ইসলামি দলগুলো তাদের সাথে জোট বাধে সেটাই আশ্চর্যের ব্যাপার। তাদের সাথে জোট বেধে ক্ষমতায় গেলে শুধু জামাতই বিনপির পরে একচেটিয়া সব সুফল ভোগ করে সে বিষয়ে ইসলামি দলগুলোর একদিন হয়ত বোধোদয় হবে।

দারুল উলুম দেওবন্দের প্রধান মুফতি মাওলানা সাইয়েদ মাহদি হাসান এক ফতোয়ায় বলেছিলেন: “মুসলমানদের জামাতের আন্দোলনে অংশ নেয়া মোটেও উচিত নয়। এটা তাদের জন্য জীবন ধংসকারি। শরিয়ার দৃষ্টিতে এই দলে যোগ দেয়া থেকে মানুষজনকে বিরত করা দরকার। এই দল মানুষের ভালোর চেয়ে ক্ষতিই বেশি করে। যারা এই দলের লক্ষ ও আদর্শের জন্য কাজ করে তারা পূন্যের বদলে পাপ কামাবে। সে নিজেকে এর ক্ষতিকর প্রভাব থেকে মুক্ত রাখতে পারবে না ও অন্যদের পাপের দিকে ধাবিত করবে। যদি কোন মসজিদের ইমাম জামাতে মওদুদির সদস্য হোন, তার পেছনে নামাজ পড়া মাকরুহ।” সাংঘাতিক দারুন ফতোয়া

তাবলিগের প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা ইলিয়াসের ছেলে ও তার উত্তরসূরী মাওলানা মোহাম্মদ ইউসুফ বলেছেন: “জামাতে মওদুদি হলো ক্ষমতালোভী একটি রাজনৈতিক দল। তারা এমন সব জিনিস গ্রহন করেছে যেগুলো শরীয়ার দৃষ্টিতে নিষিদ্ধ।”

প্রসিদ্ধ মুহাদ্দিস মাওলানা জাকারিয়া (তাবলিগ জামাতের তালিমে বহুল ব্যবহ্রত ফাজায়েলে আমাল বইয়ের লেখক) বহু তথ্য সমৃদ্ধ ফিতনায়ে মওদুদিয়াত নামে জামাতের উপর একটি বই লিখেছেন। সেখানে তিনি জামাতে মওদুদির কোরান ও হাদিসের আলোকে ইসলাম বিরুদ্ধ বিষয়গুলো তুলে ধরেছেন। বইটির এক জায়গায় তিনি মন্তব্য করেছেন: “আমি এই দলে যোগ দেয়া হারাম মনে করি। তাদের পুস্তক পাঠ করা মুসলমানদের জন্য খুবই ক্ষতিকর।”

দেওবন্দ থেকে আরেকটি ফতোয়াতে বলা হয়েছে: “জামাতের বই-পুস্তক সাহাবা ও ইমাম-মুজতাহিদের সাথে মুসলমানদের সম্পর্ক বিনষ্টকারি। মওদুদির ভ্রান্ত মতবাদের বই-পুস্তকের উপর ভিত্তি করে জামাতের আন্দোলন একারনে অবশ্যই মুসলমানদের জন্য ক্ষতিকর।  আমরা এদের সাথে পুরোপুরি সম্পর্কচ্ছেদের ঘোষনা দিচ্ছি।”

লালবাগ জামিয়া কোরানিয়া মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা শামসুল হক ফরিদপুরি  “ভুল সংশোধন” নামক একটি বইয়ে দেশবাসিকে জামাতে মওদুদির ইসলাম বিরোধি মতাদর্শ ও চিন্তাধারার ব্যাপারে সাবধান হতে বলেছেন। এক জায়গায় তিনি বলেছেন তার সারমর্ম হলো: “কোন মুসলমানের জন্য জামাতে যোগ দেয়া ও এই দলের জন্য কাজ করা উচিত নয়। যারা সাহাবাদের ভুলত্রুটি অন্বেষনে ব্যস্ত থাকে তাদের ইমাম বানানো উচিত হবে না কেননা এই ইমামদের পিছনে নামাজ গ্রহনযোগ্য নয়। সাহাবাদের ভুলত্রুটি অন্বেষনকারিদের আহলে সুন্নাহ ওয়াল জামাতে কোন অংশিদারি নেই।”

খেলাফত আন্দোলনের হাফেজজি হুজুর, এমনকি জামাতের জোটের মিত্র মুফতি আমিনী ও শায়খুল হাদিস আজিজুল হক জনসাধারনকে অতিতে বহুবার জামাতের অশুভ প্রভাবের ব্যপারে সচেতন থাকতে বলেছিলেন।

How did BNP Jamat Hefazat come up with 3,000?

বিনপি, জামাত ও হেফাজত ৩,০০০ সংখ্যাটি কিভাবে পেল?

মাঝে মাঝে মনে হয় অদ্ভূত আমাদের এই বাংলাদেশ। এই দেশে অনেক সত্য যেমন আছে আবার তেমনি তার সাথে পাল্লা দিয়ে মিথ্যাও সমান তালে চলে। ভালো খারাপ কোন কিছু ঘটার সাথে সাথে আমরা দুভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ি। তার সাথে যদি যোগ হয় আমাদের প্রিয় দলের কোন নেতার বক্তব্য তাহলে ত কথাই নেই, সেটা যত মিথ্যাই হোক তাকে মহাসত্যে রুপ দেয়া আমরা গুরু দায়িত্বের মধ্যে গন্য করে ফেলি। দেশের একটি বড় অংশের কাছে গুজব খুব একটি প্রিয় জিনিস। গুজব ছাড়া তাদের দিন যেন চলতেই চায় না। আর গুজব যদি হয় আমাদের অপ্রিয় দলটিকে নিয়ে তাহলে ত কথাই নেই। এটিকে ডালপালা মেলে যত দ্রত যত মানুষের কাছে ছড়িয়ে দেয়া যায় তাহলেই পরম শান্তি।

সাভারে মনুষ্যসৃষ্ট ভয়াবহ ট্র্যাজেডির রেশ সামান্যতমও কাটে নি তার মধ্যে জোর করে মানবতার দাবি তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করে হেফাজতে ইসলাম তাদের ৫ই মে'র অবরোধ কর্মসূচী পালন করল। অনেক সংগঠন তাদের কর্মসূচী স্থগিত করল, কিন্তু হেফাজত শত অনুরোধ প্রত্যাখান করল। এতে মানুষের মধ্যে তাদের প্রতি একটা অশ্রদ্ধার জন্ম নিল কিনা তারা খোজ নিয়ে দেখতে পারেন। কয়েকদিন পিছিয়ে দিলে তাদের মনে হয় মহাক্ষতি হয়ে যেত। তাদের সজ্ঞা অনুযায়ি যারা নাস্তিক তাদের ফাসি দেওয়াটা তখন মারাত্মক জরুরি হয়ে পড়েছিল। যুদ্ধাপরাধিদের দল জামাতের ফাদে পড়লে ইহকাল পরকাল দুটোই মাটি হয়ে যেতে পারে হেফাজতকে তাদের পরবর্তি কর্মসুচীর আগে একটি বার হলেও তা ভেবে দেখার সবিনয় অনুরোধ জানাচ্ছি। বিনপি সাভার ট্র্যাজেডির প্রতি সম্মান দেখিয়ে যেখানে নিজেদের পূর্ব ঘোষিত হরতাল প্রত্যাহার করল, তারাই আবার হেফাজতের কর্মসূচীকে পুর্ণ সমর্থন দিয়ে যা করল তা কি জনগনের সাথে প্রতারনা নয়?

হেফাজতের কর্মসুচীর ভেতর বিনপি জামাতের সরকার উৎখাতের একটি গোপন পরিকল্পনা ছিল বলেই মনে হয়। দিনভর অবিশ্বাস্য ও ভয়াবহ তান্ডবের পর হেফাজত যখন হঠাৎ করে মতিঝিলে অবস্থান কর্মসূচী ঘোষনা করে বসে তখন আপামর জনসাধারন আতংকিত হয়ে পড়ল। দেশের অর্থনীতির কেন্দ্রস্থল থেকে এদের উচ্ছেদ করা ছাড়া সরকারের আর কোন উপায় ছিল না। নিরাপত্তা বাহিনীদের যৌথ অভিযানে এত অল্প সময়ে হেফাজতিরা যে পালিয়ে যাবে তা ছিল সবার ধারনাতিত। যারা মরলে শহীদ বাচলে গাজী মন্ত্রে দীক্ষিত, শহীদ হওয়ার জন্য একপায়ে খাড়া, শহীদ হওয়াকে পরম সৌভাগ্যের ব্যাপার মনে করে তারা যে এভাবে বিনপি-জামাতের মনে নিদারুন কষ্ট দিয়ে রনে ভঙ্গ দিবে তা ছিল কল্পনার বাইরে। তবে পুরো দেশবাসির সাথে প্রবাসিরাও হাফ ছেড়ে বাচল।

এই সরকারের অনেক অযোগ্যতা, ব্যর্থতার মধ্যে এই অপারেশন শাপলা চত্বরটি দারুন সফল অভিযান। যার অনুমতি ছাড়া একটি পাতা পর্যন্ত নড়ে না তাকে আল্লাহ খোদা ইশ্বর বিধাতা যে নামেই ডাকি না কেন, তিনি একটি পক্ষকে বিশেষ অনুগ্রহ দেখিয়েছিলেন সে রাতে। কিন্তু এই সফল অপারেশনে বিরোধিদল যে ভীষন নাখোশ তাদের বড় বড় নেতাদের বক্তব্যগুলো তা প্রমান করছে। এমকে আনোয়ার বললেন এই অপারেশনে সরকার ২,৫০০ হেফাজতিকে গনহত্যা করেছে। পরেরদিন সাদেক হোসেন খোকা আরো এক কাঠি বাড়িয়ে বললেন ৩,০০০ জনকে হত্যা করা হয়েছে। তিনি নাকি বিবিসি ও সিএনএন পড়ে জেনেছেন এই সংখ্যাটি। প্রথম আলোর প্রথম পাতার খবরে রিপোর্টার লিখলেন তিনি তন্ন তন্ন করে বিবিসি ও সিএনএন এ সংখ্যাটি খুজে পান নি। বিবিসে নিউজে বলছে ২৭ জন মারা গেছে ৫ ও ৬ই মে দুইদিনে সারা দেশ জুড়ে। বাংলাদেশ ইসলামিস্ট ব্যাটল পুলিশ শিরোনামে সিএনএন রিপোর্টে বলছে ৪ জন মারা গেছে।

কালের কন্ঠের ১৬ই মে'র অনুসন্ধানী রিপোর্টে কাউকে নিখোজঁ খুজে পাওয়া যায়নি। হেফাজতের দাবিকৃত মৃত ছাত্র চাদঁপুরে ক্লাস করছে - একইদিনের ইত্তেফাকের খবর। কালের কন্ঠের ১৮ই মে'র "নিখোঁজের কোনো প্রমান খুজেঁ পাচ্ছে না হেফাজত" শিরোনামের রিপোর্টে বলছে ৩,০০০ নিখোঁজ প্রমানে মাদ্রাসায় মাদ্রাসায় অনুসন্ধান চালিয়ে সাত দিনে একজনকেও নিখোঁজ পায়নি সংগঠনটি। এছাড়া ১৭ই মে'র প্রথম আলোর খোলা কলমে লেখা "নূরে আলমের জন্য শুভকামনা" শিরোনামে লেখাটিও বিনপি জামাত ও হেফাজতিদের দাবির সত্যতা প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। হিউমেন রাইটস ওয়াচ বলছে বিরোধিদলের গনহত্যার দাবি পুরোপুরি ভিত্তিহীন। তাদের মতে ৫০ জনের মত মৃত হতে পারে। ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টারের মে'র ৮তারিখ “শাপলা চত্বর এন্ড এক্ট অব হুডিনি” শিরোনামে প্রথম পাতার আর্টিকেলে রিপোর্টার জোরালো যুক্তির মাধ্যমে দেখিয়েছেন কেন এত অল্প সময়ের মধ্যে ৩,০০০ মানুষকে মেরে একেবারে গায়েব করে দেয়া সম্ভব নয়।

তবে আমার যেটি ধারনা তা হলো বিরোধিদলগুলোর ছাত্র রাজনীতির সাথে যুক্ত দেশে বা প্রবাসে কম্পিউটার পারদর্শি (উদাহরন হিসেবে শিবির ক্যাডারদের বাশের কেল্লার কথা মনে করুন) এমন কেউ সিএনএন আইরিপোর্টে একাউন্ট খুলে বাংলাদেশে ২,৫০০ থেকে ৩,০০০ লোককে গনহত্যা করা হয়েছে বলে বেশ কিছু জালিয়াতি লেখা পোস্ট করে দিয়েছে। সিএনএন আইরিপোর্টে যে কেউ একাউন্ট খুলে যা তা লিখতে পারে। এগুলো সিএনএন এর সাংবাদিকদের বানানো বস্তুনীষ্ঠ রিপোর্ট নয়। স্রেফ ব্লগের মত। এদের প্রতিটির সাথে "নট ভেটেড বাই সিএনএন" (সত্যতা পরীক্ষা করা হয়নি) ট্যাগ লাগানো থাকে যা পাঠককে স্মরন করিয়ে দেয়ার জন্য যে এগুলো সিএনএন এর সাথে যুক্ত নয় এমন কিছুলোকের ব্যক্তিগত লেখা। এমনকি এই ব্লগগুলোর নীচে যে বাংলাদেশিরা কমেন্ট লিখছেন তাদেরও অনেকে মনে করছেন এগুলো সিএনএন এর রিপোর্টারদের করা খাটি রিপোর্ট। এখন বিরোধিদলের বড় বড় নেতারা যদি এগুলোকেই বলে সিএনএন থেকে প্রাপ্ত তথ্য, তাহলে সেটি হবে ভীষন লজ্জার। তারা ধরে নিয়েছেন যে দেশের মানুষ খুব অজ্ঞ, এটা ধরা তাদের জন্য কঠীন। তাদেরও পুরো দোষ দেয়া যায় না, যা তা গেলার জন্য দলকানা বহু লোক আছে। আর সরকারও এত দুর্বল আর অকর্মন্য যে বিরোধিদলগুলোর মিথ্যা প্রচারনার যুতসই জবাব দিতে পারছে না। শিবিরের কিছু কম্পিউটারভিত্তিক ক্যাডারের মিথ্যা প্রপাগান্ডার কাছে সরকার হেরে যাচ্ছে বারবার। মজার ব্যাপার হলো যারা গনহত্যা হয়েছে বলে দাবি তুলছে তারা কোন জোরালো প্রমান দেখাতে দেখাতে পারছে না। তাই তারা বিভিন্ন ধরনের জালিয়াতির আশ্রয় নিচ্ছে। তারা ২০১০ সালে হাইতির ভূমিকম্পে নিহতদের সারিবদ্ধ লাশের ছবি শাপলা চত্বরের বলে চালিয়ে দিচ্ছে। এমনকি ১৯৭৮ সালের সংঘটিত জোনসটাউনে শয়ে শয়ে গন আত্মহত্যাকারিদের লাশের ছবিও একাজে ব্যবহার করেছে।

যারা গনহত্যা হয়েছে দাবি করছে তারা খুব সরল একটি প্রশ্নের উত্তর দিতে পারছে না। সাভারে হাজারের উপর মৃতের জন্য যত লোক জড়ো হয়েছিল এতদিন ধরে, সে হিসেবে ৩,০০০ হেফাজতির লাশ যদি সরকার গুম করে থাকে তাহলে কত হাজার লোকের মৃত আত্মিয়ের খোজে হন্যে হয়ে খোজার কথা? কেউ একজনও কেন এতদিনে এগিয়ে এল না নিখোঁজ আত্মিয়ের খোজে? সরকার থেকে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ৩,০০০ মৃত ব্যক্তির নাম ঠিকানার লিস্ট জমা দিতে বিরোধিদলের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয়া হয়েছে। সেই ৪৮ ঘন্টা অনেক আগে পেরিয়ে গেছে। লিস্টের নামগন্ধটি নেই। তবে নানাজন নানাধরনের যুক্তি দেখাচ্ছে তাদের নেতাদের দাবি অনুযায়ি গনহত্যা হয়েছে তা প্রতিষ্ঠা করার জন্য। মৃত ৩,০০০ সবাই নাকি এতিম ছিল সেজন্যেই নাকি কেউ এগিয়ে আসছে না।  তারা এমনই এতিম তাদের ১৪ গুষ্ঠিতে কেউ নেই, মামা চাচা খালা ফুফু কেউ নেই! তাদের একজনেরও কোন একটি গ্রামে ঠিকানা পর্যন্ত নেই! যদি তা সামান্যতম সত্যি হয়, তাহলে কি দাড়াল যে এরকম সব অসহায় এতিমদের দিয়ে হেফাজত চলে? এই অসহায় এতিমদেরকে বিনপি, জামাত, হেফাজত জঘন্যভাবে ধোকা দিয়ে নিজেদের ফায়দা হাসিল করতে চেয়েছিল? এটি কি এক ধরনের অপরাধ নয়?

বলা হচ্ছে হেফাজতের ৩,০০০ নেতা ও কর্মি মারা গেছেন। কর্মিদের বাদ দিলাম, তাদের কোন নেতাটি মারা গেছেন তা আমাদের বলবেন কি? জনগন জানে হেফাজতি নেতারা কোথায় ছিলেন ৫ই মে'র রাতে। তারা অভিযানের খবর পেয়েই হোক অথবা আরাম আয়েশে খাওয়া দাওয়া ঘুমের জন্যই হোক, মতিঝিলে অবস্থান ঘোষনা দিয়ে নীরিহ শিশু কিশোরদের একা ফেলে পালিয়ে চলে গিয়েছিলেন। যুদ্ধের ময়দান থেকে পালিয়ে গেলে পরকালে মুসলমানের কি শাস্তি কওমি হুজুররা সেই সহীহ হাদিসটি কি জানেন না? বলা হচ্ছে সরকার কেন সব বাতি নিভিয়ে অন্ধকার করে ফেলল। ভয় দেখানো বা আতংকিত করার জন্য এটি একটি কৌশল হতে পারে। সেটা যে দারুন কাজে লেগেছে ফলাফলই তা প্রমান করে।

হেফাজতের এক কথা ইসলামের অবমাননা বন্ধ করতে হবে (রাজাকারদের বিচার চাওয়াও যে তাদের কাছে ইসলাম অবমাননার সামিল সেটা মুখ ফুটে বলতে তাদের শরম লাগে)। তারা যে ভয়াবহ তান্ডব চালিয়ে কোরান শরিফ পুরিয়ে অসংখ্য গরীব মানুষের সর্বনাশ করে পবিত্র ইসলাম ধর্মের চরম অবমাননা নিজেরাই করল সে সামান্য জিনিসটা বোঝার ক্ষমতা কি তাদের আছে? কোন মুসলমান যদি তাদের এই জঘন্য কুকর্ম দেখে ধর্ম থেকে দুরে সরে যায় তার জন্য যে তাদের পরকালে রোজ হাশরের ময়দানে আল্লাহর সামনে জবাবদিহি করতে হবে সেটা কি তারা জানে না? দৈনিক আমার দেশের কাবা শরিফের গিলাফ পরিবর্তনের ছবি জালিয়াতি করে মিথ্যা খবর প্রকাশ করা কি ধর্মের অবমাননা নয়? কিংবা ওআইসির সেক্রেটারি জেনারেলের বিবৃতিকে সম্পূর্ন বিকৃত করে হেফাজতিদের আরেক পত্রিকা দৈনিক নয়া দিগন্তের মার্চের ৮ তারিখে "বিতর্কিত ট্রাইবুনাল বাতিল করুন" শিরোনামে ভুয়া খবর প্রকাশ করা কি কোন ধর্মপ্রান মুসলমানের কাজ? যারা বা যে দলের লোকজন সাঈদীর ছবি ফটোশপের মাধ্যমে জালিয়াতি করে তাকে চাদে দেখা গেছে বলে উসকানিমূলক প্রচারনা করে বগুড়াসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় ভয়াবহ দাঙ্গা লাগালো, এ সম্বন্ধে হেফাজতের বক্তব্য কি? এব্যাপারে অনেকে সোচ্চার হলেও রহস্যজনক কারনে হেফাজতিরা সম্পূর্ন নীরব। অথচ এটি ছিল এক ধরনের কুফরি ও ধর্মের চুড়ান্ত অবমাননা। ইসলাম ধর্মের অবমাননা করার কারনে এদের ফাসির দাবি কেন হেফাজতিরা করছে না?

দুটি বিষয়ের অবতারনা করে লেখাটি শেষ করতে চাই। ২৭, ৫০ নাকি ৩,০০০ এর মত মারা গিয়েছিল সেদিন এই সংখ্যা বিতর্কের বাইরে যেয়ে কেউ আলোচনা করছে না যে একজন হেফাজতির কাছে শহীদ হওয়া পরম সৌভাগ্যের ব্যাপার। তারা সবাই সেদিন শহীদ হওয়ার নিয়তে জেহাদি জোশে সরকার পতনের লক্ষে ঢাকা দখল করতে এসেছিল। তাদের ভাষ্যমতে যে ৩,০০০ নিহত হয়েছে, তাদের জীবন ধন্য ও স্বার্থক। আরেকটি ব্যাপার এখানে ভেবে দেখার তা হলো আল্লাহ না করুক হেফাজতিরা যদি সেদিন সরকার পতনে সফল হয়ে নিজেরা সরকার গঠন করত, আজকে নতুন আরেকটি তালেবান রাষ্ট্রের সূচনা হত বিশ্বের বুকে। তখন দৈনিক না হোক, সপ্তাহ বা মাসে তিন চার হাজার লোক গ্রেনেড বোমায় উড়ে যেয়ে বা গুলি খেয়ে মরে যাওয়া একটি নিত্য-নৈমিত্তিক ব্যাপারে পরিনত হত। বাংলাদেশ আরেকটি পাকিস্তান বা আফগানিস্তানে পরিনত হোক আমরা কেউ ভয়ংকর দুঃস্বপ্নেও তা চাই না।

OIC Secretary General's Statement and Daily Naya Diganta's Vicious Lie


ওআইসির মহাসচিবের বিবৃতি বিকৃত করে নয়া দিগন্ত পত্রিকার জালিয়াতি

২০১৩'র মার্চের ৪ তারিখ অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশনের (ওআইসি, পূর্বের নাম অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কনফারেন্স) মহাসচিব ড. একমেলুদ্দীন এহসানুগ্লু বাংলাদেশের রাজনৈতিক সহিংসতার ওপর যে বিবৃতি দেন নীচে তা হুবহু তুলে ধরা হলো:

OIC Secretary General calls for restraint in Bangladesh
Date: 04/03/2013 

The Secretary General of the Organization of Islamic Cooperation (OIC), Prof. Ekmeleddin Ihsanoglu, has been following with concern the serious situation in Bangladesh which claimed dozens of lives and caused the destruction of public and private properties.  

In trying to bring about satisfactory solutions to the country’s political and social issues, the Secretary General invited all parties to refrain from all acts of violence which go against the interests of the country, and called for the proper respect of the rule of law by all.

(সত্যতা পরিক্ষা করতে ওআইসির লিংকটি http://www.oic-oci.org ইন্টারনেটে খুলুন। English ভাষা সিলেক্ট করুন। ওয়েব পেইজটি ওপেন হলে উপরের ডানদিকে সার্চ বক্সে বাংলাদেশ টাইপ করে এন্টার চাপুন। 04/03/2013 তারিখের OIC Secretary General calls for restraint in Bangladesh আর্টিকেলটি সিলেক্ট করুন)

সুধি পাঠক, এখন নীচে দেখুন দৈনিক নয়া দিগন্তের ভয়াবহ জালিয়াতি। ৮ই মার্চ ২০১৩'র প্রথম পাতায় তারা তথাকথিত মধ্যপ্রাচ্য প্রতিনিধির বরাত দিয়ে "বিতর্কিত ট্রাইব্যুনাল বাতিল করুন: ওআইসি মহাসচিব" শিরোনামে তিন প্যারাগ্রাফের এই আর্টিকেলটি প্রকাশ করে। তবে ইন্টারনেট লিংকটি তারা এখন কোনো অজ্ঞাত(?) কারনে অচল করে দিয়েছে। পাঠক আপনারা উপরের ইংরেজিতে আসল বিবৃতিটি পড়ুন এবং নীচের রিপোর্টটির সাথে মিলিয়ে দেখুন কি ভয়াবহ অবস্থা। দৈনিক নয়া দিগন্ত এই জালিয়াতির জন্য এখনো ক্ষমা চায়নি। আমার দেশ ও তার সম্পাদক মাহমুদুর রহমান পবিত্র কাবা শরিফের গিলাফ পরিবর্তন করা নিয়ে অনুরুপ জালিয়াতি করেছিল।

(দৈনিক নয়া দিগন্ত: আল্লামা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর রায় বাতিলের দাবিতে গত কয়েকদিন ধরে শান্তিপূর্ন বিক্ষোভকারীদের ওপর যেভাবে গুলি ও সহিংসতা চালানো হচ্ছে তা বন্ধ করে অচিরেই বিতর্কিত ট্রাইব্যুনাল বাতিলের দাবি জানান অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কনফারেন্সের (ওআইসি) মহাসচিব ড. একমেলুদ্দীন এহসানুগ্লু। গতকাল ওআইসি মহাসচিব এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান।

তিনি বিবৃতিতে আরো বলেন, বিরোধী দলের ওপর দমন-নিপীড়নের ফলে বাংলাদেশে যে ভয়ানক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে আমরা তা গভীরভাবে পর্যবেক্ষন করছি। সেই সাথে অচিরেই জামায়াত সমর্থক সাধারন নাগরিক ও পুলিশসহ নিরাপত্তা কর্মীদের সাথে যে সংঘর্ষ চলছে তা বন্ধের উদাত্ত আহবান জানাচ্ছি। আমরা আশা করছি, সরকার বিরোধী দলের সাথে আলোচনার মাধ্যমে দেশের স্বার্থে উত্তম পন্থা খুঁজে বের করবে। পুলিশ বাহিনী দিয়ে সহিংসতা এমন চরম আকার ধারন করেছে যে দেশ এক অকল্যানকর রাষ্ট্রের দিকে ধাবিত হচ্ছে। গত মাসে জামায়াত নেতা আল্লামা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে দেয়া ফাঁসির রায়কে কেন্দ্র করে শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছে আর আহত হয়েছে কয়েক হাজার। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনকে তোয়াক্কা না করে যে রায় দেয়া হয়েছে তা গ্রহনযোগ্য নয়। কেননা আইনজীবীদের কার্যক্রম ইতোমধ্যে ন্যায়বিচারের ক্ষেত্রে সন্দেহ সৃষ্টি করেছে। মানবাধিকার সংস্থাগুলো বাংলাদেশে মানবাধিকার চরমভাবে লঙ্ঘিত হচ্ছে বলে সন্দেহ পোষন করছে।

তিনি আরো বলেন, ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় যারা পাকিস্তানিদের সহযোগিতা করেছে আর চেষ্টা করেছে পাকিস্তান থেকে বিচ্ছিন্ন না হওয়ার এমন লোকদের বিচারের জন্য বাংলাদেশ সরকার ২০১০ সালে যে আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনাল গঠন করেছে তা সম্পূর্ন আন্তর্জাতিক নিয়ম-কানুনের পরিপন্থী। দলীয় ট্রাইব্যুনালে কোনো অবস্থাতেই ন্যায়বিচার আশা করা যায় না। তা ছাড়া রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে এই ট্রাইব্যুনাল গঠন করার কারনে বিদ্বেষ পোষন করা হচ্ছে। আর যাদের ওপর অভিযোগ আনা হয়েছে তারা বাংলাদেশের বৃহৎ ইসলামী রাজনৈতিক সংগঠন হিসেবে সর্বত্র পরিচিত। ১৯৭১ সালে তারা পাকিস্তান থেকে বিছিন্ন হতে না চাইলেও স্বাধীনতা-পরবর্তি বাংলাদেশের স্বাধীনতা হেফাজতে ভূমিকা পালন করে আসছেন। তিনি সবাইকে দেশের সংবিধান ও আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়ার ও ইসলামী ব্যাংকসহ সাধারন নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আহবান জানান।)

সুধি পাঠক, ওআইসি মহাসচিবের আসল বিবৃতির সাথে দৈনিক নয়া দিগন্তে প্রকাশিত বিবৃতির কোনো মিল কি খুঁজে পেলেন?